সোমবার , ৫ ফেব্রুয়ারী ২0১৮
  • হোম » কলকাতা » পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর বিরোধীদের দূরবীন দিয়ে দেখতে হবে : শোভন চট্টোপাধ্যায়




পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর বিরোধীদের দূরবীন দিয়ে দেখতে হবে : শোভন চট্টোপাধ্যায়

কলকাতা নিউজ ২৪ : 05/02/2018

IMG20180204161507

 

কলকাতা ডেক্স ঃ রাজ্য নির্বাচন কমিশন রাজ্যে ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের নিঘন্ট এখনও ঘোষণা করেনি। শাসকদলের পক্ষ থেকে ইতি মধ্যেই জেলা জুড়ে প্রাক পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রস্তুতিতে নেমে পড়েছে তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় ও তার  অনুগামীরা । ভাঙড় লাগোয়া ক্যানিং পূর্ব বিধানসভার তাড়দহ এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সম্মেলনে  উপচে পড়া ভিড় দেখে আপ্লুত শোভন চট্টোপাধ্যায় হুঁশিয়ারি পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসের সুরে বলেন পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর এই জেলায় বিরোধীদের দূরবীন দিয়ে দেখতে হবে ।এখানে মূল বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। এই ভেড়ি এলাকা এক সময় বামেদের দূর্গ বলে পরিচিত ছিল। সেখানেই এদিন তৃণমূলের রাজনৈতিক কর্মী সন্মেলনে হয়েছে। সভা সফল করতে চেষ্টার ত্রুটি রাখেনি ক্যানিং পূর্বের বিধায়ক তথা জেলা যুব তৃণমূলের সভাপতি সওকাত মোল্লা।

জেলা সভাপতি শোভন চ্যাটার্জী কর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন।তিনি বলেন, “এক সময় এই ভেড়ি এলাকায় বামেদের দাপাদাপি ছিল। ভেড়ি নিয়ে ব্যবসা চলত। তখন এই এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ ছিল।” এখন আর তা নেই। আমরা ভেড়ি নিয়ে ব্যবসা করি না। বাম নেতা রেজ্জাক মোল্লা ও সওকাত মোল্লা এখন তৃণমূলে। দল তাঁদের গ্রহন করেছে। এই এলাকাকে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে। তিনি কর্মীদের সাফ জানান, “দল যাদেরকে সমর্থন জানাবে। তাদেরকে পিছন থেকে কেউ টেনে ধরলে দল তাদের পাশে থাকবে না। মনে রাখবেন, ব্যক্তির থেকে দল বড়। এদিন তিনি পঞ্চায়েত নিয়ে বলতে গিয়ে কটাক্ষের সুরে বলেন, বিরোধী দলের প্রয়োজন। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে না। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর দূরবীন দিয়ে দেখতে হবে বিরোধীদের।” এদিনের কর্মী সভায় বিধায়ক সওকাত মোল্লা বলেন, “ছাত্র, যুব এবং মূল তৃণমূল কর্মীরা একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করা হবে।যাতে পঞ্চায়েতে একটাও আসন বিরোধীদের দখলে না যায়।”এর পাশাপাশি ক্যানিং পূর্ব বিধানসভা এলাকায় বিরোধী দের কোন চিহ্ন নেই বলে এদিন তিনি মন্তব্য করেন। সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল ও জেলা পরিষদের সভাধিপতি শামিমা শেখ বক্তব্য রাখেন। শামিমা সেখ বলেন, “দেশের চারিদিকে কৃষকরা আত্মঘাতী হচ্ছেন।” আর এখানে কৃষকদের জন্য মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে কাজ করছেন, “তাতে সারা দেশের কৃষকরা তাঁদের পাশে মুখ্যমন্ত্রীকে চাইছেন। তাঁরাই তাঁকে প্রধান মন্ত্রীর আসনে বসাবেন। এর থেকে গৌরবের আর কি হতে পারে।” সন্মেলনে ছিলেন ক্যানিং পূর্বের বিধায়ক সওকাত মোল্লা, বিষ্ণুপুরের বিধায়ক দীলিপ মণ্ডল, সোনারপুর উত্তরের বিধায়ক ফিরদৌসি বেগম প্রমুখ। এছাড়াও যুব নেতা সাজাহান মোল্লা, ভাঙড়ের নেতা কাইজার আহমেদ, ওহিদুল ইসলাম সহ ছাত্র নেতা বাহারুল ইসলাম এবং যুব নেতা কাশেফুল করুব খান উপস্থিত ছিলেন।সওকাত মোল্লার পাশাপাশি এদিনের সভায় ভাঙড়ের ত্নৃণমূল নেতা কাইজার আহমেদ, ওহিদুল ইসলাম দের বিশেষ গুরুত্ব দেন জেলা সভাপতি শোভন চট্টোপাধ্যায়।

 



Executive Editor: Akash Biswas
Associate Editor : Advocate Anshuman Sengupta
Address : kolkata
E-mail: [email protected]
© Copyright 2015 FILM & CRCC Computer center All rights reserved.