শুক্রবার, ২0 জুলাই ২0১৮
  • হোম » কলকাতা » ভাঙড়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে আহত ১, রেজ্জাক অনুগামী কে মারধরের অভিযোগ কাইজার অনুগামীদের বিরুদ্ধে




ভাঙড়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে আহত ১, রেজ্জাক অনুগামী কে মারধরের অভিযোগ কাইজার অনুগামীদের বিরুদ্ধে

কলকাতা নিউজ ২৪ : 23/03/2018

 

IMG-20180322-WA0032

 

কলকাতা নিউজ ডেক্স ঃ পঞ্চায়েত নির্বাচন এগিয়ে আসতেই আবারও গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত হল ভাঙড় ।রাতের অন্ধকারে এক  তৃণমূল কর্মী কে বেধড়ক মারধর এর অভিযোগ উঠল তৃণমূলের অপর গোষ্ঠির বিরুদ্ধে। ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার দাবিতে ভাঙড় থানায় বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূলের একাংশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, ভাঙড়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ চলছে কয়েক বছর ধরে। তৃণমূলের ভাঙড় ১ নং ব্লক সভাপতি তথা  জেলা পরিষদ সদস্য কাইজার আহমেদ  এবং ভাঙড়ের বিধায়ক তথা মন্ত্রী আব্দুর রেজ্জাক মোল্লা গোষ্ঠীর মধ্যে ওই লড়াই বলে অভিযোগ। বৃহস্পতিবার রাতে রেজ্জাক অনুগামী তৃণমূল কর্মী সনত হালদার ঘটকপুকুর থেকে বাড়ি ফেরার পথে প্রাণগঞ্জ অঞ্চলের দক্ষিণ কালীকাপুরে তার পথ আটকায় কয়েক জন দুষ্কৃতী। তাঁকে বাঁশ রড দিয়ে  বেধড়ক মারধর করা হয়। এই ঘটনায় সনত হালদার এর স্ত্রী স্বপনা হালদার তৃণমূল নেতা কাইজার আহমেদ,  প্রধান শ্যামসুন্দর মল্লিক সহ ১১ জনের নামে ভাঙড় থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তিনি বলেন, “আমার স্বামী ঘটকপুকুর থেকে বাড়ি ফিরছিল, এমন সময় কাইজার আহমেদ এবং প্রাণগঞ্জ অঞ্চলের প্রধান শ্যামসুন্দর মল্লিক এর লোকজন বাঁশ রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করে। তার বাঁ হাত ভেঙে গিয়েছে, বুকের হাড় ভেঙে গিয়েছে।”  তিনি আরো বলেন, “বন্ধুকের বাঁট দিয়ে মারধর করা হয়।” এই অভিযোগ অস্বীকার করে পঞ্চায়েত প্রধান শ্যামসুন্দর মল্লিক বলেন,” এরকম কিছু জানি না, একটা পারিবারিক গন্ডগোল হয়েছে বলে শুনেছি ।”
এই ঘটনার প্রতিবাদে কাইজার বিরোধী তৃণমূল নেতা বিনয় ঘোষ,  হাকিম মোল্লা, নিখিল সর্দার, মির তাহের, নাসিরউদ্দিন সহ জেলা পরিষদ সদস্যা খাদিজা বিবি এর নেতৃত্বে ভাঙড় থানার বিক্ষোভ দেখায় রেজ্জাক অনুগামীরা। এ বিষয়ে রেজ্জাক অনুগামী রউপ মোল্লা বলেন,” কাইজার সাংগঠনিক ভাবে দূর্বল হয়ে পড়েছে তাই আমাদের কর্মীদের উপরে আক্রমণ করছে। পুলিশ অভিযুক্ত দের অবিলম্বে গ্রেফতার না করলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।”  তিনি আরো বলেন, “কাইজার যে ভাবে মানুষের উপরে অত্যাচার করছে তা দলের উদ্ধোতন নেতৃত্বের কাছে জানানো হবে।” এ বিষয়ে কাইজার আহমেদ বলেন,” আমার মা কঠিন অসুখে ভুগছে, টানা কয়েক দিন হাসপাতালে আছি, এ বিষয়ে কিছু জানিনা।”


Executive Editor: Akash Biswas
Associate Editor : Advocate Anshuman Sengupta
Address : kolkata
E-mail: [email protected]
© Copyright 2015 FILM & CRCC Computer center All rights reserved.